Skip to content

ই খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার নিয়ম

    খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান কিভাবে করবেন চিন্তায় আছেন? ভূমি অফিসে গেলে গুরাবে অনেক তাই ভাবছেন? কত টাকা প্রয়োজন হবে সেটা নিয়েও চিন্তায় আছেন? তাহলে আমি বলব সব চিন্তা মাথা থেকে জেরে ফেলুন, কারণ আজকে এমন একটি খতিয়ান অনুসন্ধান করার পদ্ধতি দেখাব যেটার মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে পারবেন কোন চিন্তা চারাই। 

    আরও পড়ুনঃ নামজারি খতিয়ান অনুসন্ধান

    আমাদের দেখানো এই পদ্ধতি অনুস্মরণ করে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করলে আপনার প্রয়োজন হবেনা কোন টাকা, অফিস থেকে বাড়ি এবং বাড়ি থেকে অফিসে গুড়তে হবেনা একবারও, খতিয়ান অনুসন্ধান করতে দরকার হবেনা কোন টাকার। আপনি ভাবতেছেন আসলেই কি আমি সত্যি বলছি, হ্যাঁ জনাব আমি যা বলছি তা শতবাগ সত্যি। 

    আরও পড়ুনঃ নাম দিয়ে জমির মালিকানা যাচাই

    এখন আপনারা খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে পারবেন টাকা ছাড়াই, এবং নিজের মোবাইল দিয়ে। তবে এই পদ্ধতি অনুস্মরণ করে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার জন্য আপনার কিছু জিনিষ জানা থাকা লাগবে। 

    খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে দরকার

    খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনলাইনে অনুসন্ধান করতে আপনার মাত্র দুটি তথ্য দরকার হবে, এর মধ্যে প্রথমটি হলো জমির ঠিকানা এবং দ্বিতীয়টি হলো খতিয়ানের তথ্য। 

    জমির এই সকল ঠিকানা দরকার যেমনঃ – মৌজা/গ্রাম, উপজেলা/থানা, জেলা/ডিস্ট্রিক, বিভাগ/সিটি। 

    খতিয়ানের এই সকল তথ্যের মধ্যে যেকোন একটি দরকারঃ – খতিয়ানের নাম্বার, জমির দাগ নাম্বার, জমির মালিকের নাম, জমির মালিকের পিতা বা স্বামীর নাম। (এই চারটির মধ্যে যেকোন একটি হলেই হবে যদি মোবাইল অ্যাপএর মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করেন) 

    আরও পড়ুনঃ ই পর্চা খতিয়ান অনুসন্ধান

    তবে আপনি যদি ওয়েবসাইটএর মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করেন তাহলে পিতা/স্বামীর নাম দিয়ে অনুসন্ধান করার অপশন থাকবে না।

    ওয়েবসাইট দিয়ে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করলে দরকার হবে এই তিনটির মধ্যে যেকোন একটিঃ খতিয়ানের নাম্বার, দাগ নাম্বার, জমির মালিকের নাম। 

    আমরা প্রথমে দেখব কিভাবে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে হয়, 

    তারপর দেখব মোবাইল অ্যাপ দিয়ে কিভাবে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে হয়। 

    ওয়েবসাইটের মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান

    ওয়েবসাইটের মাধ্যমে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার জন্য আমাদের একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা প্রয়োজন। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা থেকে শুধু করে একদম শেষ পর্যন্ত সব কিছুই দেখব ধাপ অনুযায়ী।

    ধাপ এক – প্রথম ধাপে আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটার থেকে যেকোন একটি ইন্টারনেট ব্রাউজারে প্রবেশ করুন তারপর সার্চ বারে লিখুন “Eporcha gov bd” এরপর সার্চ করুন, সার্চ করার পর প্রথমেই আসবে Eporcha.gov.bd ওয়েবসাইটি, এটাতে প্রবেশ করুন। 

    আরও পড়ুনঃ খতিয়ান/পর্চা অনুসন্ধান করুন সঠিক উপায়ে

    ধাপ দুই – Eporcha.gov.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর দুটি মেনু আছে দেখতে পারবেন, দুটি মেনুর মধ্যে একটি হলো সার্ভে খতিয়ান আরেকটি নামজারি খতিয়ান। 

    আপনি যদি আর এস খতিয়ান, বি এস খতিয়ান, সি এস খতিয়ান, বি আর এস খতিয়ান, এই ধরনের খতিয়ান অনুসন্ধান করতে চান তাহলে আপনি মেনু বার থেকে সার্ভে খতিয়ান মেনুটি বাছাই করুন, 

    তারপর রয়েছে নামজারি খতিয়ান অপশন, আপনি যদি নামজারি খতিয়ান অনুসন্ধান করতে চান তাহলে মেনু বার থেকে নামজারি খতিয়ান অপশন বাছাই করে নিন। 

    ধাপ তিন – ধাপ তিনে আপনার জমির ঠিকানা নির্বাচন করতে হবে, ঠিকানা নির্বাচন ধাপে ধাপে করতে হবে, প্রথমে আপনার জমির স্থানের বিভাগটি নির্বাচন করুন, বিভাগ নির্বাচন করার পরেই জেলা নির্বাচন করতে হবে, জেলা নির্বাচন করার পর উপজেলা নির্বাচন করতে হবে, 

    তারপর আপনি যদি সার্ভে খতিয়ান অনুসন্ধান করে থাকেন তাহলে কোন সার্ভে খতিয়ানটি অনুসন্ধান করতে চান সেটার ধরন নির্বাচন করুন। 

    তারপর মৌজা/গ্রাম নির্বাচন করুন। 

    ধাপ চার – একদম শেষের ধাপে খতিয়ানের তালিকা অপশনে আপনার খতিয়ান নাম্বারটি দিন, তারপর খুঁজুন বাটনে ছ্যাপ দিয়ে খতিয়ান ও দাগের তথ্য দেখুন। 

    তবে আপনার কাছে যদি খতিয়ান নাম্বার না থাকে তাহলে অধিকতর অনুসন্ধান বাটনে ছ্যাপ দিন, তারপর আরও দুটি অপশন আসবে জমির দাগ নাম্বার এবং মালিকানা নাম সাবমিট করার। 

    এই দুটার মধ্যে আপনার কাছে যেটি আছে সেটা লিখুন, তারপর আবারও খুঁজুন বাটনে ক্লিক করে আপনার খতিয়ান ও দাগের তথ্য দেখুন। 

    মোবাইল অ্যাপ দিয়ে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান 

    মোবাইল অ্যাপ দিয়ে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার নিয়ম দেখুন ধাপ অনুসারে। 

    ধাপ এক – প্রথমে প্লে স্টোরে গিয়ে সার্চ করুন eKhatian এবং অ্যাপটি ডাউনলোড করুন। ডাউনলোড করার পর অ্যাপে প্রবেশ করুন, প্রবেশ করার পরেই দেখতে পারবেন “খতিয়ান” লিখা একটি মেনু রয়েছে সেটাতে ক্লিক করুন। 

    ধাপ দুই – দ্বিতীয় দাপে এসে আপনার জমির ঠিকানা নির্বাচন করা লাগবে, এর জন্য প্রথমে বিভাগ নির্বাচন করুন, তারপর জেলা নির্বাচন করুন, তারপর নির্বাচন করুন খতিয়ানের ধরন, আপনি যেই ধরনের খতিয়ান অনুসন্ধান করতে চান সেটা এখান থেকে নির্বাচন করুন, যেমনঃ নামজারি খতিয়ান। 

    তারপর উপজেলা নির্বাচন করুন, এরপর মৌজা নির্বাচন করুন। 

    ধাপ তিন – তিন নাম্বার ধাপে এসে আপনার খতিয়ানের তথ্য লিখুন, চারটি অপশন থেকে আপনার কাছে যেটি রয়েছে সেটা এখানে নির্বাচন করুন, এবং লিখুন, তারপর ক্যাপছা লিখুন, তারপর অনুসন্ধান করুন বাটনে ছ্যাপ দিয়ে আপনার খতিয়ান ও দাগের তথ্য দেখুন। 

    জমির খতিয়ান ডাউনলোড করার নিয়ম

    ওয়েবসাইট অথবা মোবাইল অ্যাপ দিয়ে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার পর আপনি সেটার অনলাইন কপি মাত্র ১০০ টাকা ফী প্রধান করে ডাউনলোড করতে পারবেন, এবং ১৪০ টাকা ফী দিয়ে ভূমি অফিস সার্টিফাইড অরিজিনাল পর্চা নিতে পারবেন আপনার পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে হোম ডেলিভারি। 

    জমির খতিয়ান ডাউনলোড করার জন্য দরকার

    জমির খতিয়ান ডাউনলোড করার জন্য আপনার দরকার হবে বেশ কিছু তথ্য, তবে এই গুলো হলো আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য, যেমনঃ 

    ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার, 

    ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী জন্ম তারিখ, 

    ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী ইংরেজি নাম, 

    মোবাইল নাম্বার, 

    আপনার হোম ঠিকানা পোষ্ট কোড সহ, 

    এবং সরকারি ফী পেমেন্ট করার জন্য একটি মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট (যেকারো হতে পারে)

    জমির খতিয়ান ডাউনলোড এবং হোম ডেলিভারি নিতে আবেদন

    জমির খতিয়ান ডাউনলোড করার জন্য এবং হোম ডেলিভারি করার জন্য আবেদন করতে হলে প্রথমে অবশ্যই আপনাকে খতিয়ানটি অনুসন্ধান করতে হবে, তু আপনারা অবশ্যই খতিয়ান অনুসন্ধান করেছেন। 

    খতিয়ান অনুসন্ধান করার শেষ পর্যায়ে যখন খতিয়ানের তথ্য দেখানো হবে, সেখানে দেখতে পারবেন একটি বাটন রয়েছে খতিয়ান আবেদন নামে। সেটাতে ক্লিক করুন, তারপর একটি ফর্ম আসবে সেটা ফিলাপ করতে হবে। 

    ফর্মটি ফিলাপ করার জন্য আপনার ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার, নাম, জন্ম তারিখ, এবং মোবাইল নাম্বার লিখুন তারপর যাচাই বাটনে ক্লিক করে ভোটার তথ্য যাচাই করুন। 

    তারপর আপনার ঠিকানা পোষ্ট অফিস কোড সহ, এবং কিভাবে খতিয়ানটি পেতে চান, যেমনঃ অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে চান নাকি সার্টিফাইড কপি নিতে চান সেটা নির্বাচন করুন। 

    অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে চাইলে তাৎক্ষনিক কপি অপশনটি নির্বাচন করুন, এবং অরিজিনাল সার্টিফাইড কপি হোম ডেলিভারি নিতে চাইলে সার্টিফাইড কপি অপশনটি নির্বাচন করুন। 

    সার্টিফাইড কপি নির্বাচন করার পর, সেটা কিভাবে ডেলিভারি নিতে চান সেটা নির্বাচন করুন, এখানে দুটি অপশন রয়েছে একটি হলো ভূমি অফিসের মাধ্যমে ডেলিভারি, এবং অপরটি হলো ডাকযোগের মাধ্যমে ডেলিভারি। আপনি যদি পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে হোম ডেলিভারি নিতে চান তাহলে ডাকযোগ নির্বাচন করুন। 

    তারপর যেকোন একটি মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টএর মাধ্যমে ফী পেমেন্ট করুন, অনলাইন কপি হলে ১০০ টাকা ফী পেমেন্ট করতে হবে, এবং সার্টিফাইড কপি হলে ১৪০ টাকা ফী পেমেন্ট করতে হবে। 

    পেমেন্ট করার পরেই আপনার তাৎক্ষনিক অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন, এবং আপনি যদি সার্টিফাইড কপির জন্য আবেদন করে থাকেন তাহলে সেটা ১০ দিনের মধ্যে আপনার স্থানীয় পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে হোম ডেলিভারি পাবেন। 

    উপসংহার

    খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার দুটি পদ্ধতিই আমরা এই পোষ্টে দেখিয়েছি, এই পোষ্টটি ধাপ অনুযায়ী অনুস্মরণ করে আপনি খুব সহজেই খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করতে পারেন, এবং আমাদের এই পোষ্ট থেকে আপনারা জানতে পারবেন কিভাবে অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে হয়, এবং অরিজিনাল কপি ডেলিভারি নিতে হয়। 

    অর্থাৎ আমাদের এই পোষ্ট থেকে খতিয়ান ও দাগের তথ্য অনুসন্ধান করার প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত সকল কিছুই দেখানো হয়েছে, এরপরেও যদি আপনার আরও কিছু জানার থাকে তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটের Contact us পেইজে যান, এবং সেখানে থাকা Whatsapp নাম্বারে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

    Related Post
    ই নামজারি যাচাই ও নামজারি আবেদন চেক
    ই পর্চা খতিয়ান অনুসন্ধান
    খতিয়ান/পর্চা অনুসন্ধান
    নাম দিয়ে জমির মালিকানা যাচাই

    FAQs

    দাগ ও খতিয়ান নং চেক

    একটি জমির দাগ ও খতিয়ান নং এর রেকর্ডের মাধ্যমে তার মালিকানা হিসাব রাখা হয়, জমির দাগ ও খতিয়ান নং এর মাধ্যমে একটি জমির পূর্ণাঙ্গ পরিচয় পাওয়া যায়, দাগ নং দারা জমির পরিমান এবং স্থান নির্ধারণ করা হয় এবং খতিয়ান দারা উক্ত জমিটির স্থান, পরিমান এবং মালিকানা যাচাই করা যায়, এবং এটির মাধ্যমেই একটি জমির হিসাব রাখা হয়।

    আপনি যদি দাগ ও খতিয়ান নং দিয়ে অনলাইনে জমির মালিকানা যাচাই করতে চান তাহলে খুব সহজেই তা করতে পারেন, যা আমরা ইতি মধ্যেই আমাদের অনেক পোষ্টে উল্লেখ করেছি এবং শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দেখিয়েছি।

    এছাড়া আপনি যদি জমির মালিকানা নাম দিয়ে দাগ ও খতিয়ান নং চেক করতে চান তাহলেও আমাদের লিখা আর্টিকেল থেকে খুব সহজেই নাম দিয়ে জমির মালিকানা যাচাই এবং দাগ ও খতিয়ান নং চেক করতে পারবেন।

    www land gov bd আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান

    আর এস খতিয়ান জমির একটি বিশেষ ডকুমেন্ট এই খতিয়ান দাঁরা জমির অরিজিনাল মালিক কে তা বুজা যায়, তাই এই খতিয়ানটির গুরুত্ব অনেক বেশি, তবে অনেকের কাছে আর এস খতিয়ানের অরিজিনাল কপি না থাকার কারণে বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করেন আর এস খতিয়ানটির অরিজিনাল কপি পাওয়ার জন্য, সেই সাথে আমরা অনেকেই জানি বাংলাদেশের সরকারি বেসরকারি সকল সেবা কেন্দ্রে রয়েছে দুর্নীতির চোঁয়া আর এজন্যই ভূমি অফিসে গিয়ে আর এস খতিয়ান বা অন্যান্য ডকুমেন্ট খুজা খুবি কষ্টকর।

    আপনাকে হয়তো অনেক অফিসে আসা যাওয়া করতে হবে, অথবা যদি আসা যাওয়া করা নাও লাগে তাহলে বেশ কিছু টাকা না দিলে ভূমি অফিস থেকে কোন কাগজপত্রই নেওয়া যায়না। এছাড়া অনেক ভূমি অফিসে সাধারণ মানুষকে কোন গুরুত্ব দেওয়া হয়না, সেজন্য একজন পেশাদার মরিলকে হায়ার করতে হয় জিনি ভূমি অফিসে গিয়ে আপনার আর এস খতিয়ান খুঁজে বের করেন। মোট কথা এটাই যে আপনি ভূমি অফিস থেকে যেভাবেই খতিয়ান সংগ্রহ করতে চান না কেন এর জন্য আপনার অনেক সময়ের পাশাপাশি বেশ কিছু টাকাও খরচ হবে।

    তবে খুশীর খরব হলো এটা যে আপনার কাছে যদি উক্ত আর এস খতিয়ানটির কোন একটি তথ্য অর্থাৎ দাগ নম্বর, খতিয়ান নম্বর, মালিকানা নাম থাকে তাহলে আপনি ঘড়ে বসে নিজের মোবাইল দিয়ে আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান করতে পারবেন এবং মাত্র ১৪০ টাকা পেমেন্ট করে সেটার অরিজিনাল কপি আপনার ঠিকানায় হোম ডেলিভারি নিতে পারবেন।

    আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান করতে বিস্তারিত পড়ুন…

    খতিয়ান অনুসন্ধান বি এস

    খতিয়ান অনুসন্ধান বি এস যাচাই করার জন্য একই ভাবে Eporcha gov bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ঠিকানা এবং অন্যান্য তথ্য সাবমিট করে বি এস খতিয়ান জাচাই করতে পারবেন, বিস্তারিত পড়ুন…

    x