Skip to content

পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করার নিয়ম

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করা এখন খুবি সহজ, বর্তমান অধুনিক যোগের সকল তথ্য ও প্রজোক্তির কল্যাণে এখন আমরা ঘড়ে বসেই পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করতে পারি। 

    বাংলাদেশের সকল কিছুতে রয়েছে দুর্নীতি বিদেশে যেতে ভিসা প্রধান করা লোকজন বা দালাল তার বেতিক্রম নয়, অনেক মানুষকে দালালরা ভুয়া ভিসায় বিদেশে পাঠিয়ে তাদের জীবন শেষ করে দিয়েছে এবং প্রতিনিয়ত এটা নিয়ে প্রতারনার হাঁর বেড়েই ছলেছে। 

    এছাড়া বিদেশে যাওয়ার আগেই অনেকের কাছে ভুয়া ভিসা দরিয়ে দিয়ে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তাই সময় হয়েছে এসব বিষয়ে সতর্ক হওয়ার। এই পোষ্টে আমরা এমন কিছু পদ্ধতি দেখাব যেগুলো জানার পর আপনি নিজেই পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করতে পারবেন। 

    আমাদের দেখানো পদ্ধতি অনুস্মরণ করে মালেশিয়া, সৌদি আরাবিয়া, ইন্ডিয়া সহ আরও বিভিন্ন দেশের ভিসা চেক করতে পারবেন। 

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করার জন্য আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটার থেকে যেকোন একটি ব্রাউজারে প্রবেশ করে আপনার ক্ষাঙ্কিত দেশের নাম সহ ভিসা চেক লিখে সার্চ করুন। যেমনঃ এভাবে সার্চ করতে পারেন – Saudi Arabia Visa Check, Malaysia Visa Check, India Visa Check. 

    তারপর একদম প্রথমে আসা ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন, প্রবেশ করার পর আপনার ভিসা অ্যাপ্লিকেশান নাম্বার, পাসপোর্ট নাম্বার এবং দেশের নাম দিয়ে চেক বাটনে ক্লিক করলেই আপনার ভিসা হয়েছে কি না তা জানতে পারবেন। 

    যেকোন দেশের ভিসা চেক করার জন্য এই তিনটি বা দুটি তথ্য প্রয়োজন হবেঃ 

    অ্যাপ্লিকেশান আইডি/Application ID, পাসপোর্ট নাম্বার/Passport Number, Nationality/Country/জাতীয়তা/. 

    এই নিয়ম অনুস্মরণ করে আপনি পৃথিবীর যেকোন দেশের ভিসা খুব সহজেই অনলাইনে নিজের মোবাইল বা কম্পিউটার দিয়ে চেক করতে পারবেন। এর জন্য আপনার কারো কাছে যাওয়ার কিংবা কারো মুখাপেক্ষী হওয়ার প্রয়োজন নেই। 

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে মালয়েশিয়া ভিসা চেক

    আপনি যদি পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে মালয়েশিয়া ভিসা চেক করতে চান তাহলে আমাদের দেখানো এই পদ্ধতি অনুস্মরণ করে সহজেই মালয়েশিয়ার ভিসা চেক করতে পারবেন। 

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে মালয়েশিয়া ভিসা চেক করার জন্য একটি ব্রাউজারে গিয়ে লিখুন “Malaysia Visa Check. 

    এটা লিখে সার্চ করলেই একদম প্রথমে একটি ওয়েবসাইট আসবে সেটাতে ক্লিক করে বিতরে প্রবেশ করুন। 

    ভিসা ভেরিফাই পেইজে আসার পর আপনার পাসপোর্ট নাম্বার এবং স্টিকার নাম্বার দিতে হবে।

    আপনাকে দালাল যেই ভিসা দিয়েছে সেটাতে স্টিকার নাম্বার লিখা থাকবে, তু দালালের কাছ থেকে পাওয়া ভিসা থেকে স্টিকার নাম্বার এবং আপনার পাসপোর্ট থেকে পাসপোর্ট নাম্বার নিয়ে এখানে বসান। 

    তারপর ছবিতে প্রদর্শিত হওয়া কোডটি Answer অপশনে লিখুন, তারপর I have obtained my eVISA. অপশনে ঠিক চিহ্ন দিয়ে Check  বাটনে ক্লিক করুন। 

    তারপরেই দেখতে পারবেন আপনার ভিসা হয়েছে কি না। 

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে সৌদি ভিসা চেক

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে সৌদি ভিসা চেক করাও খুবি সহজ, আপনার মোবাইল থেকে ব্রাউজারে প্রবেশ করুন। তারপর লিখুন “Saudi Arabia Visa Check” এবং সার্চ করুন, অথবা এখান থেকে তাদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। 

    সৌদি আরাবিয়া ভিসা চেক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরেই দেখতে পারবেন দুটি অপশন রয়েছে, একটি হলো ভিসা অ্যাপ্লিকেশান আইডি এবং আরেকটি হলো পাসপোর্ট নাম্বার। 

    আপনার ভিসার জন্য যেই অ্যাপ্লিকেশান করা হয়েছিল বা আপনার ভিসার মধ্যে যেই অ্যাপ্লিকেশান আইডি রয়েছে সেখান থেকে অ্যাপ্লিকেশান আইডি নিয়ে ওয়েবসাইটে বসান, তারপর আপনার পাসপোর্ট নাম্বার বসান। 

    অ্যাপ্লিকেশান আইডি ও পাসপোর্ট নাম্বার বসানোর পর ছবিতে প্রদর্শিত হওয়া ক্যাপছা কোডটি Enter text from Image অপশনে লিখুন। 

    তারপর ভিসা চেক করার জন্য Check Status বাটনে ছ্যাপ দিন। তারপরেই আপনার ভিসা হয়েছে নাকি সেটা দেখতে পারবেন অথবা দালাল আপনাকে যেই ভিসা দিয়েছে সেটা অরিজিনাল কি না সেটাও জানতে পারবেন। 

    এবাবেই খুব সহজে পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে সৌদি ভিসা চেক করতে পারবেন। 

    উপসংহার

    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করার এই পর্বে আমরা দেখিয়েছি কিভাবে মালয়েশিয়া ভিসা এবং সৌদি আরাবিয়া ভিসা চেক করতে হয়। আমাদের দেখানো এই নিয়ম অনুস্মরণ করে আপনি পৃথিবীর যেকোন জায়গা থেকে পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করতে পারবেন। 

    তবে আপনি যে শুধু পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক করতে পারবেন এমনটাও না। ভিসা চেক করার জন্য অবশ্যই অ্যাপ্লিকেশান আইডি দরকার হবে। প্রতিটা দেশের ভিসা আবেদনের একটি নির্দিষ্ট নাম থাকে যেমন মালিয়েশিয়ার ভিসা পেতে হলে স্টিকার করতে হয় যেটাকে আমরা বলি অ্যাপ্লিকেশান। আবার সৌদি ভিসা পেতে হলে অ্যাপ্লিকেশান করতে হয়। 

    তু এই ভাবে যেই দেশের ভিসা অ্যাপ্লিকেশান যেই নামে রয়েছে সেটার নাম্বার অবশ্যই থাকতে হবে। 

    যেমনঃ মালয়েশিয়ার ক্ষেত্রে স্টিকার নাম্বার থাকতে হবে। 

    সৌদি আরাবিয়ার ক্ষেত্রে অ্যাপ্লিকেশান আইডি থাকতে হবে। 

    এবং এই ভাবেই প্রতিটা দেশের নির্দিষ্ট কোড সহ আপনার পাসপোর্ট নাম্বার সাবমিট করলেই ভিসার বর্তমান অবস্তা দেখতে পারবেন অথবা ভিসা অরিজিনাল নাকি নকল সেটাও দেখতে পারবেন।

    Related Post
    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স চেক
    পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে মেডিকেল রিপোর্ট চেক
    ই পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে পাসপোর্ট চেক করার নিয়ম
    ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে?
    x